বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১২:২১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
Logo দিনাজপুর বিরামপুরে পবিত্র ঈদ-ই-মিলাদুন্নবী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত  Logo হবিগঞ্জে র‍্যাব -৯সিপিসি-১অভিযানে ধর্ষন মামলার পলাতক আসামী গ্রেফতার Logo বিরামপুরে শীতকালীন সবজি ওঠায় দাম কমেছে স্বস্তি ফিরছে সাধারণ মানুষের! Logo সিরাজগঞ্জে বেলকুচিতে শিক্ষা অফিস সহকারীর বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ টাকা দিলেই ফাইল নড়ে Logo নবাবগঞ্জে যৌতুকের দাবিতে নির্যাতনের শিকার স্ত্রী,স্বামী সুজন গ্রেফতার  Logo হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে জুয়া খেলার অপরাধে ৬ জনকে কারাদণ্ড ও অর্থদন্ড প্রদান!  Logo সিরাজগঞ্জে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে রিভালবার ও গুলিসহ ৬ ডাকাত আটক  Logo খানসামায় সম্প্রতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা  Logo নাটোরে শিমুলের নেতৃত্বে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তির শোভাযাত্রা। Logo দিনাজপুর বিরামপুরে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা

এক নারী কখনো মিনু-সিমু-ফাতেমা-রোমানা: তিন স্বামী একাধিক পরকিয়া প্রেমিক !

কাজল মুন্সি বার্তা সম্পাদকঃ / ৫৫ বার পঠিত
আপডেট : শনিবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৫:২২ অপরাহ্ণ
এক নারী কখনো মিনু-সিমু-ফাতেমা-রোমানা।

 মিনু, সিমু, ফাতেমা, রোমানা। শুনতে চার নারীর নাম মনে হলেও সবগুলো নামই একজনের। সবগুলোর নামেই রয়েছে তার একাধিক জাতীয় পরিচয়পত্র এবং নাগরিক সনদপত্র।

এমনকি রয়েছে একাধিক স্বামী, করেছেন একাধিক প্রতিষ্ঠানে চাকরিও। বিয়ের নামে পুরুষদের ফাঁদে ফেলে অর্থ-সম্পদ লুট, জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতি করে নানা রকমের প্রতারণা ও নিরীহ লোকদের হয়রানিসহ বিভিন্ন ধরনের অভিযোগে মিনু আক্তার ওরফে নাছমিন আক্তার সিমু ওরফে ফাতেমা খাতুন ওরফে ফাতেমা আক্তার রোমানা নামে এক নারীর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে।

খাগড়াছড়ির বাঘাইছড়ি উপজেলার মারিশ্যা গ্রামের বাসিন্দা হলেও বর্তমানে গাজীপুরে থাকছেন তিনি। বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম মেহনাজ রহমানের আদালতে মামলাটি করেন ওই নারীর দ্বিতীয় স্বামী প্রবাসী ইমাম হোসেন।

মামলায় ওই নারী ছাড়াও মোস্তফা জামিল ও রাশেদ নামে আরো দুজনকে আসামি করা হয়। মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, ২০১৯ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি ১০ লাখ টাকা কাবিনে মিনু আক্তারকে বিয়ে করেন চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার জোরারগঞ্জের দূর্গাপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা ইমাম হোসেন। বিয়ের পর ইমাম হোসেন জানতে পারেন সীতাকুণ্ড উপজেলার ভাটিয়ারী এলাকার রাশেদ নামে আরো এক যুবকের সঙ্গে চার বছর ধরে শারীরিক সম্পর্ক রয়েছে মিনুর। কিন্তু তবুও সবকিছু মেনে নিয়ে বিদেশে পাড়ি জমান তিনি। এরই মধ্যে মিনু আক্তার নাম পাল্টে হয়ে যান নাছমিন আক্তার সিমু। ২০২০ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি বিয়ে করেন গাজীপুরের মোস্তফা জামিলকে।

বিষয়টি ইমাম হোসেনের নজরে এলে মিনুর প্রতারণা সম্পর্কে খোঁজ নিতে থাকেন তিনি। পরে জানতে পারেন ২০০৮ সালে লুৎফুর রহমান নামে টাঙ্গাইলের আরো একজনকে বিয়ে করেছিলেন মিনু। ওই সংসারে একটি সন্তানও রয়েছে তার। মূলত অনেকের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি তুলে ব্ল্যাকমেইল করাই তার কাজ।

ভুক্তভোগী ইমাম হোসেনের আইনজীবী গোলাম মাওলা মুরাদ বলেন, মিনু আক্তারের নানাবিধ প্রতারণার প্রমাণ মিলেছে। তার চারটি ভিন্ন ভিন্ন নামের জাতীয় পরিচয়পত্র, তিনটি কাবিননামা, একাধিক বিয়ে ও বিভিন্ন পুরুষের সঙ্গে মেলামেশার তথ্য রয়েছে। মূলত পুরুষদের বিয়ের ফাঁদে ফেলে প্রতারণাই তার কাজ। মিনুসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মামলাটি এজাহার হিসেবে গ্রহণ করতে বায়েজিদ বোস্তামী থানাকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

এ বিষয়ে মিনু আক্তার ওরফে নাছমিন আক্তার সিমু ওরফে ফাতেমা খাতুন ওরফে ফাতেমা আক্তার রোমানার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ইমাম হোসেনের সাথে তার দেড় বছর আগে ডিফোর্স হয়ে গেছে। কিন্তু তার সত্যতা দেখাতে পারেন নি। তিনি আরো বলেন, এনআইডি জালিয়াতি তিনি করেন নি, ভুল বশত দুইটা হয়েছিল, তিনি একটি বাতিলের আবেদন করেছেন।

এনআইডি নিয়ে ইমাম হোসেন মামলা দায়ের করলে আমার কিছু করার নেই। ইমাম হোসেন এর বিষয়ে তিনি কিছু বলতে রাজি হননি। তিনি বলেন, যেহেতু, আমার সাথে তার ডিফোর্স হয়ে গেছে সেহেতু ইমাম হোসেনের বিষয়ে আলোচনা করতে চাই না। বর্তমানে তিনি ঢাকায় টঙ্গীতে আছেন বলেও জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর পড়ুন
Theme Customized By Theme Park BD