বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১২:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনায় স’মিল শ্রমিকদের অন্তর্ভুক্তি দাবি

দৈনিক বাংলার আলো ২৪ ডেস্ক / ৫৭ বার পঠিত
আপডেট : শনিবার, ১৭ জুলাই, ২০২১, ২:৫৫ পূর্বাহ্ণ

(অনলাইন ডেস্ক)

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী ৩ হাজার ২০০ কোটি টাকার নতুন প্রণোদনা প্যাকেজের ঘোষণা দিলেও তাতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি কর্মহীন স’মিল শ্রমিকদের। এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রণোদনার তালিকায় অন্তর্ভুক্তির আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ স’মিল শ্রমিক ফেডারেশন।

শুক্রবার (১৫ জুলাই) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মো. খলিলুর রহমান খান ও সাধারণ সম্পাদক রজত বিশ্বাস।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যানুযায়ী মোট শ্রমশক্তির প্রায় শতকরা ৮৫ ভাগ অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের। সঠিক কোনো পরিসংখ্যান না থাকলেও স’মিল সেক্টরে কর্মরত শ্রমিকের সংখ্যা লক্ষাধিক। চলমান লকডাউনের কারণে সারাদেশের অধিকাংশ স’মিল প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে আছে, আবার কিছু মিল খোলা থাকলেও ব্যবসা মন্দার অজুহাত তুলে অনেক প্রতিষ্ঠানের মালিকরা শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি ঠিকমতো পরিশোধ করছেন না। কোনো কোনো মালিক শ্রমিকদের মজুরিও কমিয়ে দিয়েছেন। এমনকি অধিকাংশ মালিক ঈদুল ফিতরের উৎসব বোনাস দেননি। শ্রমিক-কর্মচারীরা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে সারাদিন কাজ করে যে মজুরি পেয়ে থাকেন তা দিয়েই জীবনধারণ করা যেখানে কষ্টসাধ্য সেখানে কর্মহীন শ্রমিকদের অবস্থা ।                            

তারা আরও বলেন, গত এক বছরে সারাদেশে নতুন করে আড়াই কোটি মানুষ দরিদ্র হয়েছেন, ৬২ লাখ শ্রমিক কাজ হারিয়েছেন। অথচ সরকার ঘোষিত নগদ অর্থ প্রদানের তালিকা ক্রমশ কমানো হচ্ছে। গত বছর প্রথম পর্যায়ে ৫০ লাখ কর্মহীন শ্রমিকদের নগদ ২ হাজার ৫০০ টাকা করে দেয়ার কথা বলা হলেও দেয়া হয় ৩৬ লাখ মানুষকে। এরপর দ্বিতীয় দফার নগদ আর্থিক সহযোগিতার তালিকায়ও তা আর বাড়ানো হয়নি। আর বর্তমানের ঘোষণা অনুযায়ী, ১৭ লাখ ২৪ হাজার ৪৭০ জনকে নগদ ২ হাজার ৫০০ টাকা করে দেয়া হবে, যা আগের তুলনায় অর্ধেকেরও কম। সরকারের নগদ অর্থ সহযোগিতা প্রাপ্তির তালিকায় দিনমজুর, পরিবহন শ্রমিক, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, নৌ-পরিবহন শ্রমিকদের অন্তর্ভুক্ত করা হলেও কর্মহীন স’মিল শ্রমিকদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

ইতোমধ্যে জানানো হয়েছে আগামী ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত ১৪ দিনের সর্বাত্মক লকডাউন শুরু হবে, যা পর্যায়ক্রমে আরও বাড়তে পারে। তাই স’মিলের শ্রমিকরা আবার কবে কাজে যোগ দিতে পারবেন তার ঠিক নেই। এর মধ্যে শুরু হচ্ছে মুসলিম সম্প্রদায়ের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা। এক অজানা উৎকণ্ঠার মধ্যে শ্রমিকদের ঈদুল আজহা কাটাতে হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত নগদ আর্থিক সহযোগিতার তালিকায় কর্মহীন স’মিল শ্রমিকদের অন্তর্ভুক্ত করার আহ্বান জানিয়ে নেতৃবৃন্দ আসন্ন ঈদুল আজহার আগে সব স’মিল শ্রমিকদের চলতি মাসসহ বকেয়া মজুরি পরিশোধ এবং দেড় মাসের মজুরির সমপরিমাণ উৎসব বোনাস, কর্মহীন হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করা স’মিল শ্রমিকদের জন্য সরকারের উদ্যোগে খাদ্য সহায়তা, শ্রমিকদের জন্য রেশনিং চালু, সরকারি প্রণোদনা ও ত্রাণ প্রদানে সব ধরনের লুটপাট ও অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করা, কর্মহীন শ্রমিকদের গ্যাস-বিদ্যুৎ বিল মওকুফসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য কমানো এবং অবিলম্বে স’মিল শিল্প সেক্টরে নিম্নতম মজুরি বোর্ডের মাধ্যমে বাজারদরের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ ন্যায্য মজুরি ঘোষণার দাবি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর পড়ুন
Theme Customized By Theme Park BD